সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার উপায় | সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার খরচ - become a software engineer

প্রিয় বন্ধুরা বিডি ড্রাফট এর এই নতুন আর্টিকেলে আপনাদের সাথে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার উপায়  নিয়ে আলোচনা করা হবে । আপনারা যারা সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হতে চান তাদের জন্য এই আর্টিকেল অনেক গুরুত্বপূর্ন , শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন । 
সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার উপায় - সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার খরচ - become a software engineer - bddraft.com


সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং ক্ষেত্রটি গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্যারিয়ার পছন্দের একটি হয়ে উঠেছে। দক্ষ সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারদের চাহিদা প্রচুর, এবং শিল্পটি সূচকীয় হারে বাড়ছে। এই নিবন্ধে, আমরা বাংলাদেশে একজন সফল সফ্টওয়্যার প্রকৌশলী হওয়ার জন্য কী কী পদক্ষেপ নিতে পারেন তা নিয়ে আলোচনা করব।
এই আর্টিকেলে আলোচনা করা হবে ঃ 
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার উপায়
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার এর বেতন
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার এর বেতন বাংলাদেশে
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এর প্রয়োজনীয়তা
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারের কাজ কি
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হতে হলে কোন বিষয় নিয়ে পড়তে হবে
  • সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার যোগ্যতা

একটি পথ চয়ন করুন:

একজন সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে আপনার যাত্রা শুরু করার আগে, আপনি কোন পথটি নিতে চান তা নির্ধারণ করতে হবে। ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট, গেম ডেভেলপমেন্ট, সাইবার সিকিউরিটি এবং ডেটা সায়েন্স সহ সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং-এ বিশেষায়িত করার বিভিন্ন ক্ষেত্র রয়েছে। প্রতিটি ক্ষেত্রে সফল হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা এবং সরঞ্জামগুলির নিজস্ব সেট রয়েছে। সুতরাং, আপনার আগ্রহ এবং শক্তির উপর ভিত্তি করে আপনার পথ বেছে নিন।
সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার উপায় - সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার খরচ - become a software engineer - bddraft.com

বিদ্যা আরোহণ কর:

বাংলাদেশে একজন সফ্টওয়্যার প্রকৌশলী হওয়ার জন্য আপনার কম্পিউটার বিজ্ঞান বা সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে একটি শক্তিশালী শিক্ষাগত পটভূমি থাকতে হবে। বেশিরভাগ সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পদের জন্য কমপক্ষে একটি স্নাতক ডিগ্রি প্রয়োজন। আপনি বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রি অর্জন করতে পারেন, যেমন বুয়েট, এনএসইউ, ব্র্যাক, বা এআইইউবি, যা চমৎকার কম্পিউটার বিজ্ঞান প্রোগ্রাম অফার করে। আপনি আপনার দক্ষতা আরও বিকাশের জন্য Coursera, Udemy বা edX এর মতো প্ল্যাটফর্মগুলি থেকে অনলাইন কোর্সগুলি অনুসরণ করার কথাও বিবেচনা করতে পারেন।

প্রযুক্তিগত দক্ষতা বিকাশ করুন:

একজন সফ্টওয়্যার প্রকৌশলী হিসাবে, শিল্পে সফল হওয়ার জন্য আপনার চমৎকার প্রযুক্তিগত দক্ষতা থাকতে হবে। আপনার অবশ্যই জাভা, পাইথন, সি++ বা জাভাস্ক্রিপ্টের মতো প্রোগ্রামিং ভাষাগুলিতে একটি শক্ত ভিত্তি থাকতে হবে। আপনার ডাটাবেস, অপারেটিং সিস্টেম এবং কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সম্পর্কেও শিখতে হবে। প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকার জন্য শিল্পে ব্যবহৃত সর্বশেষ প্রযুক্তি এবং সরঞ্জামগুলির সাথে তাল মিলিয়ে চলা অপরিহার্য।

ব্যবহারিক অভিজ্ঞতা অর্জন করুন:

সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং ক্ষেত্রে বাস্তব অভিজ্ঞতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনি স্কুলে থাকাকালীন বা কোডিং প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে প্রকল্পগুলিতে কাজ করে বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জন শুরু করতে পারেন। এছাড়াও আপনি বাংলাদেশের সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানিতে ইন্টার্নশিপ বা খণ্ডকালীন চাকরি খুঁজতে পারেন। এটি আপনাকে বাস্তব প্রকল্পগুলির সাথে অভিজ্ঞতা প্রদান করবে এবং আপনাকে একটি পেশাদার নেটওয়ার্ক তৈরি করতে সহায়তা করবে৷

একটি পোর্টফোলিও তৈরি করুন:

বাংলাদেশের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য একটি পোর্টফোলিও তৈরি করা অপরিহার্য। একটি পোর্টফোলিও সম্ভাব্য নিয়োগকর্তাদের কাছে আপনার দক্ষতা এবং কৃতিত্ব প্রদর্শন করে। আপনি ব্যক্তিগত প্রকল্পে কাজ করে বা ওপেন সোর্স প্রকল্পে অবদান রেখে একটি পোর্টফোলিও তৈরি করতে পারেন। এছাড়াও আপনার কাজ নথিভুক্ত করা উচিত এবং আপনার পোর্টফোলিও প্রদর্শনের জন্য একটি ওয়েবসাইট বা অনলাইন উপস্থিতি তৈরি করা উচিত।

আপনার কোমল দক্ষতা উন্নত করুন:

সফট স্কিল হল অ-প্রযুক্তিগত দক্ষতা যা বাংলাদেশের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ। আপনার অবশ্যই চমৎকার যোগাযোগ, সমস্যা সমাধান এবং টিমওয়ার্ক দক্ষতা থাকতে হবে। আপনার সময় কার্যকরভাবে পরিচালনা করতে এবং চাপের মধ্যে কাজ করতে সক্ষম হওয়া উচিত। এই দক্ষতাগুলি আপনাকে শিল্পে সফল হতে এবং আপনার কর্মজীবনে অগ্রসর হতে সাহায্য করবে।

অন্তর্জাল:

সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং ক্ষেত্রে নেটওয়ার্কিং গুরুত্বপূর্ণ। আপনি স্থানীয় প্রযুক্তি সম্প্রদায়গুলিতে যোগ দিতে পারেন বা শিল্পের অন্যান্য পেশাদারদের সাথে দেখা করতে প্রযুক্তি সম্মেলনে যোগ দিতে পারেন। আপনি শিল্প প্রবণতা এবং উন্নয়ন সম্পর্কে আপ টু ডেট থাকার জন্য অনলাইন ফোরাম বা আলোচনা গোষ্ঠীতে যোগদানের কথাও বিবেচনা করতে পারেন। নেটওয়ার্কিং আপনাকে কাজের সুযোগ খুঁজে পেতে, জ্ঞান অর্জন করতে এবং ক্ষেত্রের পেশাদারদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলতে সাহায্য করতে পারে।

সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার খরচ

বাংলাদেশে সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার খরচ বিভিন্ন কারণের উপর ভিত্তি করে পরিবর্তিত হতে পারে, যেমন প্রতিষ্ঠানের ধরন, প্রোগ্রামের সময়কাল এবং পাঠ্যপুস্তক এবং বাসস্থানের মতো অতিরিক্ত খরচ। সাধারণভাবে, বাংলাদেশের একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সফ্টওয়্যার প্রকৌশল অধ্যয়ন করা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের তুলনায় বা বিদেশে অধ্যয়নের তুলনায় তুলনামূলকভাবে সাশ্রয়ী।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়:


বাংলাদেশের একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সফ্টওয়্যার প্রকৌশল অধ্যয়নের জন্য টিউশন ফি স্নাতক ডিগ্রি প্রোগ্রামের জন্য প্রতি বছর BDT 50,000 থেকে BDT 100,000 হতে পারে। বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় যেগুলি কম্পিউটার বিজ্ঞান প্রোগ্রাম অফার করে তার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট), এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়:


বাংলাদেশের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় বেশি টিউশন ফি থাকে। একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার জন্য টিউশন ফি স্নাতক ডিগ্রি প্রোগ্রামের জন্য প্রতি বছর 150,000 টাকা থেকে 300,000 টাকা পর্যন্ত হতে পারে৷ বাংলাদেশের কিছু সুপরিচিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় যারা কম্পিউটার বিজ্ঞান প্রোগ্রাম অফার করে তাদের মধ্যে রয়েছে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি (NSU), ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি, ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (IUB), এবং আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি-বাংলাদেশ (AIUB)।

অতিরিক্ত খরচ:


টিউশন ফি ছাড়াও, বাংলাদেশে সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সময় শিক্ষার্থীদের বিবেচনা করতে হবে এমন অতিরিক্ত খরচ রয়েছে। এই খরচের মধ্যে পাঠ্যপুস্তক, স্টেশনারি, বাসস্থান, পরিবহন এবং অন্যান্য জীবনযাত্রার খরচ অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। এই খরচের মোট খরচ বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান এবং ছাত্রের জীবনধারার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে।

বৃত্তি:


বাংলাদেশে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের জন্য বেশ কিছু বৃত্তি এবং আর্থিক সহায়তার বিকল্প রয়েছে। বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলি অসামান্য শিক্ষার্থীদের মেধা-ভিত্তিক বৃত্তি প্রদান করে, যখন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলি প্রয়োজন-ভিত্তিক এবং মেধা-ভিত্তিক বৃত্তি প্রদান করে।


উপসংহার:


বাংলাদেশে একজন সফটওয়্যার প্রকৌশলী হওয়ার জন্য প্রয়োজন নিষ্ঠা, কঠোর পরিশ্রম এবং ক্রমাগত শেখার। আপনার পথ বেছে নেওয়া, একটি শক্তিশালী শিক্ষা অর্জন করা, প্রযুক্তিগত দক্ষতা বিকাশ করা, বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জন করা, একটি পোর্টফোলিও তৈরি করা, আপনার সফট স্কিল উন্নত করা এবং শিল্পের অন্যান্য পেশাদারদের সাথে নেটওয়ার্ক করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সঠিক মানসিকতা এবং পদ্ধতির সাথে, আপনি বাংলাদেশের একজন সফল সফ্টওয়্যার প্রকৌশলী হতে পারেন এবং শিল্পে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারেন।
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
কোন মন্তব্য নেই
এই পোস্ট সম্পর্কে আপনার মন্তব্য জানান

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন - অন্যথায় আপনার মন্তব্য গ্রহণ করা হবে না ।

comment url